• 201

ডিস্ট্রিক্ট-২৪ নির্বাচন: কমিউনিটির প্রতিক্রিয়া

ডিস্ট্রিক্ট-২৪ নির্বাচন: কমিউনিটির প্রতিক্রিয়া

ফলাফলের প্রতিক্রিয়া জানানো কমিউনিটির বিশিষ্টজনরা

বাংলাদেশি ৪ প্রার্থীর অংশগ্রহণ। সে কারণে এবারের নিউইয়র্ক সিটি ডিস্ট্রিক্ট-২৪ নির্বাচনটা বাংলাদেশি কমিউনিটির জন্য ছিলো বাড়তি আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দুতে। তবে, ভোটের পর শুধুই হতাশার পালা। কেন এমনটা হলো? ভরাডুবির কারণটা কি? তা নিয়ে চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ। সেই উত্তর খোঁজার চেষ্টা করেছে এফএম-৭৮৬। 


ফলাফল বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে চার বাংলাদেশি প্রার্থী মিলে মোট ভোট পেয়েছেন ১ হাজার ২৩। যা বিজয়ী প্রার্থী জেমস এফ জিনারোর চাইতেও প্রায় অর্ধেক কম। এমনটা কেন? এর উত্তরে বাংলাদেশ সোসাইটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আব্দুর রহিম হাওলাদার বললেন, বাংলাদেশি প্রার্থীর সংখ্যা বেশি হওয়াটা হারের অন্যতম একটা কারণ। পরবর্তী যেকোন ইলেকশনে বাংলাদেশি-আমেরিকান প্রার্থীদের অবশ্যই ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। সাথে ভোটারদের ভোট প্রদান নিশ্চিত করার পরামর্শ আব্দুল রহিম হাওলাদের।


জ্যামাইকা বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস সোসাইটির প্রেসিডেন্ট ফখরুল ইসলাম দেলোয়ারের মতে, প্রার্থীদেরকে শুধু নির্বাচনের সময় নয়, বছর জুড়ে সকল কমিউনিটির পাশে থেকে কাজ করতে হবে। তিনি মনে করেন, বাংলাদেশি কমিউনিটির সবাই ঐক্যবদ্ধ না। এটা হারের অন্যতম একটা কারণ। সব প্রার্থীই যোগ্য। তবে, সবধরনের কমিউনিটির সাথে তাদের যোগসূত্র কম বলে দাবি তার। ফখরুল ইসলাম দেলোয়ার বলেন, আমি বিশ্বাস করি এবারের যে রেজাল্ট হয়েছে তা অপ্রত্যাশিত, মেনে নেয়ার মতো না।


সাপ্তাহিক পরিচয় পত্রিকার সম্পাদক নাজমুল আহসান বলেন, ‘নির্বাচন শ্বেতাঙ্গ বনাম অশ্বেতাঙ্গ, হিসপানিক বনাম এশিয়ান বা ভারতীয় বনাম বাংলাদেশির লড়াই নয়। এখানে নির্বাচনে লড়তে হলে আমেরিকান হতে হবে। যোগ্যতার মাপকাঠি হবে- আমেরিকান সমাজের কাছে কে বেশি গ্রহণযোগ্য, তা নিয়ে।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমেরিকার মূলধারার রাজনীতিতে বিভিন্ন দেশ থেকে আসা মানুষজন সম্পৃক্ত হন আমেরিকান হিসেবে। তাই বারবার ‘বাংলাদেশি’র কথাটা আলাদা করে তোলা কতটা জরুরি, তা ভেবে দেখা দরকার। এই কথাটা আলাদা করে তুলতেই বা হবে কেন?


বাংলাদেশি অ্যামেরিকান অ্যাডভোকেসি গ্রুপের সেক্রেটারি জয়নাল আবেদিন বলেন, সবাই মিলে একজন প্রার্থী চূড়ান্ত করলে এমনটা হতে হতো। তাই বাংলাদেশি কমিউনিটির সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানান জয়নাল আবেদিন।


ভোটের ফলাফল ভাবাচ্ছে তরুণদেরও। অ্যাক্টিভিস্ট খাইরুল ইসলাম খোকন বলেন, এবারের নির্বাচন আমাদের অনেক কিছু শিক্ষা দিয়েছে। আমাদের উচিত সম্ভাব্য প্রার্থীদের নিয়ে এক টিবিলে বসা, ভুলগুলো চিহ্নিত করা। আমাদের প্রার্থীদের অংশ নেয়ার জন্য ধন্যবাদ। ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে ভবিষ্যতে অংশ নিলে বিজয় আসবেই বলে মনে করেন খাইরুল ইসলাম খোকন।

আপনার মতামত লিখুন :